বধূ না মাওবাদী

সকাল ১১টা নাগাদ মেদিনীপুর জেল গেটে সম্পদ এসেছে দেখা করার জন্য নাম লেখাতে। টেবিলের ওপার থেকে প্রশ্ন এলো, ‘বধু না মাওবাদী’। সম্পদ চকিতে বুঝতে পেরে বলে ‘মাওবাদী’। ‘২ টোয় আসবেন’ শুনে সম্পদ মুচকি হেসে চলে যায়।

২০১০ সালে দেড় মাসের মতো ছিলাম মেদিনীপুর জেলে। ধরেছিল শালবনীর রামেশ্বরপুর থেকে। অভিযোগ ছিল একটি ডিজিটাল ক্যামেরা, একটি ভয়েস রেকর্ডার, ক’টা পেন, একটি নোটবই আর ৫,০০০ টাকা দিয়ে রাষ্ট্রদ্রোহ, দেশের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ইত্যাদি ষড়যন্ত্র করা। ধরার আগে বুঝতে পারিনি সাংবাদিক ও লেখক বন্ধুদের সাথে যৌথ- বাহিনীর দখলে জঙ্গলমহলের অবস্থা দেখতে যাওয়াটাও অপরাধ। সাংবাদিকদের ছেড়ে দিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে এফ-আই-আর হলো। অবশেষে ঠাঁই হল মেদিনীপুর জেলে। লালগড় আন্দোলনে শয়ে শয়ে জঙ্গলমহলের মানুষকে জেলযাত্রা করিয়েছিল সেই সময়ের বাম সরকার। আজ যদিও সরকার বাম থেকে তৃণমূল হয়েছে কিন্তু সেই সময়কার পঞ্চাশেরও বেশি আন্দোলনকারী আজ দশ বছর পরেও বাংলার বিভিন্ন জেলে বন্দী।

শেয়ার করুন