সম্পাদকীয়

সম্পাদকীয়

বামা গুলফিশা ফতিমা। গত দেড় বছরেরও বেশি সময় ধরে জেল বন্দী। অপরাধ, নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন ও এনআরসি-র মতো ঘাতক নীতির বিরোধিতা। ২০১৯-এর শেষ ভাগে যখন সারা দেশ এই আইনের বিরুদ্ধে পথে নেমেছিল, এমবিএ-র ছাত্রী ২৮ বছরের গুল ছিল লড়াইয়ের সামনের সারিতে। দিল্লির সিলামপুরে মুসলিম মহিলাদের অবস্থানে নেতৃত্ব দিয়েছিল গুল।  রাষ্ট্র ক্ষমতা বিরোধিতা সহ্য করে না। …

সম্পাদকীয় Read More »

শেয়ার করুন

সম্পাদকীয়

বামা-র লক্ষ্য যেমন একদিকে মূলধারার ইতিহাসে প্রান্তিক হয়ে থাকা অতীত স্বরগুলির অনুরণন খুঁজে বের করা, তেমনই বর্তমান প্রেক্ষিতে দাঁড়িয়ে দিনে দিনে আরও বেশি অন্তর্ভুক্তিমূলক হয়ে ওঠা। বহুস্বরের প্রকাশমাধ্যম হয়ে ওঠা। হাজার প্রতিকূলতা সত্ত্বেও বামা-কে প্রেরণা জোগায় দেশের মেয়েদের স্পর্ধা, প্রতিবেশী মেয়েদের প্রতিরোধ। তালেবান আক্রমণের সম্মুখে আফগান নারীদের প্রতিস্পর্ধা যদি সম্ভব হয়, তাহলে সব চরম পিতৃতান্ত্রিক শক্তির বিরুদ্ধেই রুখে দাঁড়ানো সম্ভব। রোজাভা আন্দোলনের কুর্দি মেয়েদের মতো, আফগান নারীরাও বিশ্বজনীন নারীবাদী আন্দোলনকে পথ দেখাক- এমনই বামা-র আশা। কুর্দি কমরেডদের আফগান মেয়েরা যেমনটা বলেছিল, এই দুঃসময়ে সেই স্বপ্নই দেখে বামা।

শেয়ার করুন

সম্পাদকীয়, আগস্ট, ২০২১

বামা “গর ফির্দৌস বুর্রে জমিনস্ত  হামি নস্ত, হামি নস্ত, হামি নস্ত…” এই পৃথিবীতে যদি কোথাও স্বর্গ থেকে থাকে, তবে তা এখানেই, এখানেই, এখানেই – আমির খুসরুর এই লাইন দুটিই হয়তো আমাদের বেশিরভাগের কাশ্মীরকে চেনার প্রধান সূত্র। নৈসর্গিক কাশ্মীর। যে কাশ্মীরকে আমরা চিনি শীতকালের শালওয়ালাদের নকশার বুননে। যে কাশ্মীরের সাথে আমাদের পরিচয় ‘মিশন কাশ্মীর’, ‘রোজা’, কিম্বা …

সম্পাদকীয়, আগস্ট, ২০২১ Read More »

শেয়ার করুন

সম্পাদকীয়, জুলাই ২০২১

১১ই জুলাই ১৯৯৬। রাতের অন্ধকারে বিহারের ভোজপুরের বাথানীটোলা গ্রামে রণবীর সেনার উচ্চবর্ণ জমিদার বাহিনী ঢুকে পড়লো। জ্বালিয়ে দিল দলিত, মুসলিম পরিবারের সমস্ত ঘরবাড়ি। ত্রিশূলে গেঁথে ফেলল অচ্ছুত নিম্নবর্ণ ভ্রূণ, দুগ্ধপোষ্য শিশু। গর্ভবতী মহিলা সহ অন্যান্য নারীদেহের ওপর চালাল অবাধ গণধর্ষণ। মারা গেলেন ২১ জন। তাঁদের অপরাধ ছিল, তাঁরা দলিত বা মুসলিম। অপরাধ ছিল ক্ষেতের কাজের …

সম্পাদকীয়, জুলাই ২০২১ Read More »

শেয়ার করুন

সম্পাদকীয়, জুন ২০২১

পরিবারতন্ত্র থেকে বেরিয়ে যেতে পারলেই উত্তরাধিকার শব্দটি এক আলাদা মাত্রা পায়। কিসের উত্তরাধিকার এবং কে সেই উত্তরাধিকারী, এই গতিশীলতায় উৎপন্ন হয় নতুন ভাবনার, নতুন চিন্তার। বিসমকামী পারিবারিক প্রথায় যৌতুক যেমন শোষকের নির্লজ্জ দাবী, নারীর বৈষয়িক উত্তরাধিকার হয়ত তেমনই শোষণমুক্ত হতে পারার এবং শিকল ছিঁড়ে বেরোতে পারার সম্ভাবনা। আর তাই, সেই সম্ভাবনাকে গুঁড়িয়ে দিতে, অপরের সম্পদে নিজের অধিকার কায়েম রাখতে, অপরকে নিজের সম্পদে পরিণত করতে অত্যাচারী মানুষেরা এবং প্রতিষ্ঠানগুলো দমন, নিয়ন্ত্রণ, বঞ্চনা ইত্যাদির আশ্রয় নেয়। কিন্তু এই উত্তরাধিকার যদি বিমূর্ত হয় অথবা হয় কোন ইতিহাসের পাঠ, তখনও কি শোষক এর ভাগ চাইবে, না কী চেষ্টা করবে সেইসব বিমূর্ত সম্ভাবনাগুলিকেই সমূলে বিনাশ করতে? উত্তরাধিকারসূত্রে পাওয়া দ্রোহ তো শোষকের বিপক্ষেই যায় আর সেকারণেই হয়ত প্রান্তিক যাপনের উত্তরাধিকার কেন্দ্রে অবস্থিত ক্ষমতাসীন মানুষদের ভীত নাড়িয়ে দেয়। তেমনই এক উত্তরাধিকারের সময় এই জুন মাস।

শেয়ার করুন

সম্পাদকীয়, মে ২০২১

গত এক মাস ধরে দেশজুড়ে মৃত্যু মিছিল; শহরে শহরে জ্বলল গণচিতা, খোঁড়া হল গণকবর, পার্ক হয়ে উঠল অস্থায়ী শ্মশান। আমরা আমাদের সহনাগরিকদের শব ভেসে যেতে দেখলাম নদীর জলে। শুধুমাত্র অক্সিজেনের অভাবে, ন্যূনতম স্বাস্থ্য পরিষেবা না পেয়ে দেশজুড়ে মৃত্যু হল হাজার হাজার মানুষের। আমরা হারালাম আমাদের স্বজন, বন্ধু, আর কমরেডদের।

শেয়ার করুন

সম্পাদকীয়, এপ্রিল ২০২১

বাংলায় ভোট-মাস। আর ভোট-মাস মাসে বিশ্বদর্শন। প্রতিদ্বন্দ্বিতা প্রকট হলেই তো ব্যক্তি ও গোষ্ঠীর যত অন্ধকার, যত দাঁত নখ, তাও প্রকট হয়। প্রকট হয় সার্বিক হিংস্রতা, উগ্রতা। আর লিঙ্গসাম্য নিয়ে যাঁরা চর্চা করি, তাঁরা অবাক হয়ে দেখি, কীভাবে প্রতিনিয়ত উদগ্র হচ্ছে কুরুচিকর বডিশেমিং ও নারীবিদ্বেষ৷ এই দুইটি প্রান্তর কোনো পার্টির একচেটিয়া নয়। আজ যিনি ভিক্টিম, কাল তিনিও প্রতিপক্ষকে একই ভাষায় আক্রমণ করতে পারেন। ভাষা তথা ভঙ্গির গুরুত্ব বড় কম নয় ক্ষমতার রাজনীতিতে। তারা ঘৃণা ও নৃশংসতার বাহন হয়ে ওঠে এ সময়।

শেয়ার করুন

সম্পাদকীয়, মার্চ ২০২১

আজ যখন হিন্দুত্ববাদ নতুন করে অর্থনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক আগ্রাসন এনে নারীবাদী রাজনীতির বহু সংগ্রামের মাধ্যমে ছিনিয়ে আনা অধিকারকে নস্যাৎ করে, আমাদের খাদ্যাভ্যাস, যাপন, যৌনতা সমস্ত কিছুকেই নিয়ন্ত্রণ করতে চায়, যখন পুঁজির স্বার্থে নারী শ্রমিকদের মাতৃত্বকালীন ছুটি, কাজের নিশ্চয়তা খর্ব করে; যখন মাহামান্য আদালতের একের পর এক রায় নারীবিদ্বেষে সিলমোহর দেয়, যখন আদালত হুকুম করে যে রাজার দরবারে শুধু ‘স্বামী-স্ত্রীর’ আদলে একরকমের পরিবারই স্বীকৃতি পাবে, তখন এই অবাধ্য, এই বেখাপ্পা প্রান্তিকায়িত মানুষেরাই তাদের যাপন, তাদের জীবন, তাদের দ্রোহের আগুনে সেই খোপগুলোকে পুড়িয়ে ছারখার করে দেন।

শেয়ার করুন