জেলের অন্ধকারে

শব্দ গুলো মাঝে মাঝে-

বুদবুদের মতো ভেসে ওঠে,

বায়বীয় অবয়ব মিলিয়ে যেতে থাকে,

বয়ে যাওয়া বাতাসে।

সময়-জেলের অন্ধকারে

পাথরের মতো ভারি হতে থাকে।

ঋতু পরিবর্তনে বিবর্ণ ফুল ঝরে পড়ে,

মুক্তির রং ফিকে হয় মননে।

প্রতিদিন সূর্য দীর্ঘ ছায়া ফেলে 

লোহার গরাদের অন্তরালে,

তলিয়ে যায় গাঢ় অন্ধকারে-     

গভীর দাগ রেখে যায় মননে।

অকাল জরাগ্রস্ত পৃথিবী এরই মধ্যে-

একই সূচ্যগ্রে দাঁড়িয়ে,

সূর্যটার মরা মাছের মতো চোখে চোখ রেখে-

দশবার পাক খেয়ে এসেছে।

“গণতন্ত্র”-এর নামে-

মতপ্রকাশের অধিকার,

মেয়ের রাজনীতির অধিকার,

ক্ষমতার রক্ষক নিয়ম করে খুন করে চলেছে।

জেলের সব চেয়ে উঁচু মিনার থেকে-

ন্যাকড়ার মতো ঝুলে আছে-

জাতীয় পতাকার নিচে-

সিংহের থাবায় লাঞ্ছিত শান্তি চক্রে-

ন্যায়ের অধিকার রক্তাক্ত হতে থাকে-

কাকভোরে লাশ হয়ে রাজবন্দির চির মুক্তি মেলে।

তবু কল্পনা-যমুনা-পারো-হিরনদী-সুধা-সোমা-হিড়মেদের জেলের অন্ধকারে-

মর্যাদার লড়াই মশাল হয়ে জ্বলে।

 

ছবি- অভিজিত সেনগুপ্ত

শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *