মৌমিতা আলমের দুটি কবিতা

প্রতিরোধ

ভাষান্তর : সোহেল ইসলাম

 

কোন বই পড়ব

কী লিখব 

কী ধরনের পোশাক পরব―

এইসব কিছুর সিদ্ধান্ত নেব আমি

 

তোমার বিরুদ্ধে

তোমাদের তাচ্ছিল্য

তোমাদের শাসানি

তোমাদের বিদ্রুপের বিরুদ্ধে 

এই আমি দৃঢ় ওক গাছ হয়ে দাঁড়ালাম

ওই শোনো স্কুলের ঘন্টা বাজছে

 

তোমাদের চরম ঘৃণাই

আমাকে শক্তি সংগঠিত করতে শিখিয়েছে

জানি সমস্ত পথ রুদ্ধ করে দিতে পারো

কেড়ে নিতে পারো সমস্ত অধিকার

কিন্তু শোনো বন্ধুরা

আমি সেই আলো

সেই উদ্ভাস

যে আহত, রক্তাক্ত তবুও উদিয়মান

 

আমি ফিনিক্স পাখি নই

যে চিতার আগুন থেকে উঠে আসব

আমি অতীত 

আমিই ভবিষ্যৎ

আমিই বর্তমান

এবং চিরন্তনও আমি

 

আমিই সেই যুদ্ধ

যাকে তোমরা কোনোদিন হারাতে পারবে না

 

ভুলে যেও না 

আমার নাম

আমিই ভালোবাসা

আমিই হিজাব পরা মেয়ে

সকলে যার নাম দিয়েছে প্রতিরোধ

 

নিষিদ্ধ হিজাব, বন্ধ স্কুল

অসাড় হয়ে পড়ে আছি বিছানায়

আর ইচ্ছে নেই জেগে ওঠার

আমি কী মৃত!

নাকি জীবন্ত লাশ?

কুরে কুরে খাচ্ছে আমায়

কিছু বর্ণমালা

আজও ফেরানো গেলো না ওদের স্কুলে

এত ভয় পাইনি কখনও শব্দকে

আমার চোখের সামনে ফুলগুলো সব

স্লোগান হয়ে গেলো

চক, ডাস্টার আর বইগুলো

সব আমার মৃত সন্তান

যাদের হত্যা করেছে রাষ্ট্র

আর আমি অসহায়

মূক, বধির হয়ে

দাঁড়িয়ে থেকেছি এপারে।

আজ এসেছিলো ওরা

পড়বে বলে

আমি বন্ধ করে দিয়েছি দরজা।

যখন ওরা দুভাগ হতে হতে

আঁধারের মুখ হয়ে মিলিয়ে গেলো সংখ্যায়

আমি ডাক দিতে পারিনি ওদের।

ঘৃণা হয়

কুঁকড়ে থাকি আস্তাকুঁড়ে

একবার ডাকতে পারতাম তো!

বড্ড দেরি হয়ে গেলো।

 

শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published.