#মিটু এবং দিল্লী আদালতের রায়

আমরা কখনও মাথায় রাখিনা যে সংহতি প্রদর্শন রাজনীতির বাইরে নয়। কেউ যখন প্রকাশ্যে নিজের ওপর ঘটে যাওয়া হিংসা এবং হেনস্থার আখ্যান সবার মধ্যে তুলে ধরছে, তখন সে সংহতির দাবী রাখে। অপরদিকে, যখন কেউ অভিযুক্ত হচ্ছে সেও আশ্রয় খুঁজবে নিঃসন্দেহে। এই দুই অবস্থান, সংহতি এবং সহায়তা, কোনভাবেই অরাজনৈতিক হতে পারে না। যারা নিঃশর্ত সংহতি জানানোয় বিশ্বাসী তাদের সমস্যা চারগুণ বেড়ে যায় যখন খবর আসে যে অভিযুক্ত তাদেরই কাছের মানুষ। এই টানাপোড়েন থেকে বেরোবার কোনও সহজ রাস্তা নেই।

শেয়ার করুন