গানের এক জীবন: উডি গাথরী ও তার সময় (তৃতীয় পর্ব)

১৯৪১ লস এঞ্জেলেসে প্রথম স্ত্রী মেরি এবং ছেলে মেয়ের সঙ্গে এক তীব্র আর্থিক অনটনের মধ্যে জীবন কাটাচ্ছিলেন উডি গাথ্রি প্রায় নিঃস্ব হতে বসেছেন এমনই সময় এসে গেলো এক অভাবনীয় সুযোগ বনভিল পাওয়ার অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের প্রধান ইনফরমেশন অফিসার স্টিভেন কান যোগাযোগ করলেন অ্যালন লোমাক্সের সঙ্গে রুজভেল্ট প্রশাসন কুলি নদীর ওপর এক অতিকায় বাঁধ নির্মাণ করছে এই নির্মাণ কাজে যে শুধু বহু শ্রমিকের শ্রম নিযুক্ত তাই নয়, এই বাঁধের ফলে সরকারি উদ্যোগে বেসরকারি বিদ্যুৎ কোম্পানির তুলনায় অনেক কম দামে গ্রামীণ মানুষের ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়া যাবে এই বাঁধের ফলে সেচের কাজেও অগ্রগতি হবে বিস্তর এহেন এক বিপুলাকার জনকল্যাণমূলক কর্মকাণ্ড গড়ে তুললেই শুধু চলবেনা, মার্কিন জনগণের মধ্যে এর মহান উদ্দেশ্য প্রচার করাও প্রয়োজন সেই প্রচার প্রকল্পের অংশ হিসেবেই তাই দরকার এমন এক শিল্পী যিনি প্রকৃতির ওপর মানুষের শ্রম প্রযুক্তির এই বিজয় অভিযানের উদযাপনে গান বাঁধতে পারেন অতঃপর অ্যালন লোম্যক্সের সুপারিশে উডি চললেন ওয়াশিংটন ধুলো ঝড়ে বিধ্বস্ত মানুষের কবিয়ালের জীবনে শুরু হলো এক নতুন অধ্যায় কুলি নদীর বাঁধ নিয়ে গান লেখার বরাত পেয়ে জীবনে অন্তত কিছুটা সময়ের জন্য হলেও অর্থনৈতিক স্থিতি ফিরে এলো আর তার চেয়েও বড় কথা, তার এই অর্থাগম ঘটলো প্রাণের খুশিতে গান লিখে পিট সিগারের কথায়, “Woody got paid a regular salary and he did what he was best at: made up song after song after song after song”.7

উডি এই পর্যায়ে এক মাসের মধ্যে মোট ২৬টি গান বাঁধেন এই গানগুলি আরো একটি কারণে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ এগুলিই সম্ভবত তার পেশাদারী সঙ্গীত জীবনের প্রথম ফরমায়েশি গান এক অতিকায় রাষ্ট্রীয় কর্মযজ্ঞের অংশী হিসেবে তার কাজ গানের মাধ্যমে মানুষকে সভ্যতার এক প্রায় বৈপ্লবিক পরিবর্তনের গল্প শোনানো মানুষের বৌদ্ধিক কায়িক শ্রম তার যথাযথ মর্যাদা পেলে কোন বিপুল সম্ভাবনাময় মহাজীবন রচনা করতে পারে যেন তারই নজির ধুলোঝড়ে হৃতসর্বস্ব মানুষের শ্রমশক্তির শোষণ অপচয়ের পথ পেরিয়ে এই কর্মযজ্ঞ যেন এক নতুন যুগের সূচনা; জাতীয় জীবনে শুধু নয় ব্যক্তি শিল্পীর জীবনেও যেন নেতির থেকে ইতির দিকে যাত্রা উডির মনে হলো মার্কিন দেশে সমাজতন্ত্র কখনো এলে তার বুঝি এমনভাবেই আসার কথা8 জীবনে সম্ভবত এই প্রথম তিনি তার চারপাশে এমন গঠনমূলক কিছু দেখলেন যা একজন রাজনৈতিকভাবে দায়বদ্ধ গণশিল্পী হিসেবে তার কল্পনার শ্রমিক মানুষের সব পেয়েছির দেশের খুব কাছাকাছি, তা সে কল্পনা যতই রোমান্টিক হোক না কেন 

উডি এই সময়ে যে ২৬ টি গান লেখেন তার মধ্যে ১৮ টি গান রেকর্ড করা হয় এই ১৮ টি গানের মধ্যে থেকে শেষ পর্যন্ত তিনখানি মাত্র গান ১৯৪৯ সালে মুক্তি পাওয়া কানের “The Columbia: America’s Greatest Power Strem” শীর্ষক তথ্যচিত্রটিতে জায়গা করে নেয় এই তিনটি গান – “Roll, Columbia, Roll”, যা কিনা পরে ১৯৮৭ তে ওয়াশিংটন রাজ্যের সরকারি লোকগান হিসেবে গৃহীত হয়, “Pastures of Plenty” এবং “Biggest Thing That Man Has Ever Done” – তো বটেই, তথ্য চিত্রের বাইরের গানগুলো শুনলেও কথাই মনে হতে বাধ্য যে উডির কাছে কলম্বিয়া নদীবাঁধ প্রকল্পের জন্য গান গাওয়া আর মানব সভ্যতার সামগ্রিক প্রগতির পক্ষে গান গাওয়া প্রায় সমার্থক হয়ে উঠেছিল এই নির্ভেজাল আশাবাদ আজকের প্রেক্ষিতে অনেক সময়ই বাস্তবতার অতিসরলীকরণ বলে মনে হয়

“Washington Talkin’ Blues” গানে উডি লিখছেন – 

Been to Arizona, been to California, too,

Found the people was plenty but the jobs was few;

Well maybe it’s like the feller said,

When they ain’t enough arok, well, business is dead,

Sorta ailin’. Ain’t no money a changin’ hands, just people changing places. Folks wastin gasoline a’chasin’ around.

Now what we need is a great big dam

To throw a lot of water out acrost that land,

People could work and the stuff would grow

And you could wave goodbye to the old Skid Row

Work hard, raise all kinds of stuff, kids, too. Take it easy.

অর্থাৎ, কর্মহীন, ভাগ্যপীড়িত ধুলো ঝড়ের উদ্বাস্তুদের ক্যালিফোর্নিয়া হতাশ করলেও ওয়াশিংটন ফিরিয়ে দেবেনা জিমি রজার্সের জনপ্রিয় “Muleskinner Blues” এর সুরে বাধা  উডি গাথ্রির “Columbia’s Waters” এর বক্তব্যও প্রায় এক – 

This Columbia River

Rolls right down this line;

Columbia’s waters taste like sparklin’ wine;

Dustbowl waters taste like picklin’ brine.

The money that I draw from workin’ at your Coullee dam;

My wife will meet me at the kitchen door stretchin’ out her hand;

She’ll make a little down payment

On our forty acre tract of land.

We’ll work along this river, I’ll sing from sun to sun;

I’ll walk along this grass and listen to the factory hum;

Look what I’ve done gone and done.

এই প্রত্যেকটি গানে যেভাবে বারবার কর্মহীন উদ্বাস্তুদের কথা ফিরে ফিরে এসেছে তাতে মনে হয়, সত্যিই তো, যে শিল্পী  বছর কয়েক আগে ধুলোঝড়ে ভিটেহারা মানুষের প্রতিনিধি হয়ে তাদের সমস্যা সমাধানে রাষ্ট্রীয় উদাসীনতা ব্যর্থতাকে এত কাছ থেকে দেখেছেন তার পক্ষেই বোধহয় কোন গঠনমূলক রাষ্ট্রীয় কর্মযজ্ঞে এতটা আশাবাদী হওয়া সম্ভব ছিল তবে একথাও ঠিক, বৃহৎ বাঁধ প্রকল্পের সুদূর প্রসারী কুফল বা বাঁধের জলাধার তৈরি করতে জোর করে উৎখাত হওয়া ওই অঞ্চলের মূলনিবাসী জনজাতি সহ প্রায় তিন হাজার মানুষের কথা উডির গানে সামগ্রিকভাবে অনুচ্চারিত থেকে গেলেও তার রাজনৈতিক চেতনা বাস্তব অভিজ্ঞতা যে মাঝে মাঝেই তার সরল আশাবাদ কে ছাপিয়ে যাচ্ছিল কথা না বললে উডির প্রতি অবিচার করা হয় 

কলম্বিয়া নদীবাঁধের গানগুলি মার্কিনী শ্রমজীবী কৃষিজীবী মানুষের জয়গানতবেডাস্ট বোওলসংকট উডিকে যেভাবে বৃহত্তর সর্বজনীন প্রেক্ষিত থেকে উদ্বাস্তু সমস্যাকে দেখতে শিখিয়েছিল, কুলি নদীর বাঁধ নিয়ে লেখা গানগুলি সেই অর্থে কিন্তু প্রান্তিকতার ব্যাপক বিবিধ ভাষ্যের আভাস দেয় না সে কারণেই এদের বক্তব্য সীমাবদ্ধ, কিন্তু তা বলে মূল্যহীন নয় 

“Oregon Trail” গানটির সেই প্রবল আশাবাদী ছোট কৃষকের কথা মনে পড়ে যিনি খরা আর ধুলোঝড়ে ঊষর চাষের জমি ছেড়ে কলম্বিয়া নদী বাঁধের জলে সেচ করা উর্বর জমি চষার আশায় পথ চলেছেন এবং যিনি এখনো সরল মনে বিশ্বাস করেন

If we work hard there’s a future

In that north Pacific land

I’m gonna hit that Oregon trail this comin’ fall.

কিন্তু কি ক্যালিফোর্নিয়া আর কি ‘Pacific Northwest’, অভিজ্ঞতার খুব বেশি হেরফের হয় কি? মিলর্ড ল্যাম্পেলকে এই সময় লেখা এক চিঠিতে উডি বলছেন

“Crooked real estate agents have pulled all sorts of thievery deals on the farmers who hit here with a few hundred bucks – no good land – . . . Where the people have worked like slaves with no tractors, no machinery, and by hand, to heave out the big storms, only to find a dead end: no water. Chemically bad land, and, result, hundreds of vacant houses in the rainy country to almost match the Rotten deserted shacks in the dust bowl country.”9 প্রগতি আর সভ্যতার জোয়াল বওয়া, খেটে খাওয়া মানুষের দল অপরিহার্য, তবু তারাই অবহেলিত ওরাই বার বার ঠকে যায় উডি কিন্তু দানবীয় বাঁধের গান বাঁধতে গিয়ে আদতে সেই শ্রমিক মানুষের কথাই বারবার বলে চলেন  যারা যুগে যুগে দেশে দেশে নানা সব কীর্তি স্থাপন করে আধুনিক পৃথিবীর আরেক আশ্চর্য নির্মাণ করতে চলেছেন – 

I clumb the rocky canyon where the Columbia River rolls,

Seen the salmon leaping the rapids and the falls

The big Grand Coulee Dam in the state of Washington

Is just about the biggest thing that man has ever done.

আর একটা কথাও ভুললে চলবে না যে এই গানগুলি উডির স্বাধীন কাজ নয়।তাকে নিয়োগ করা হয়েছিল শুধুমাত্র নদী বাঁধের স্তুতিতে নতুন গান বাঁধার জন্য। সেখানেও যে তিনি বৃহত্তর আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক প্রশ্নগুলো তুলতে চেয়েছিলেন তাও নেহাত কম কথা নয়

আসলে, উডি গাথরির এই সময়কার কাজ নিয়ে আলোচনা করতে গেলে শুধু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কথা বললে চলবে না গোটা বিশ্ব পরিস্থিতির কথা তো বটেই, উডির ব্যক্তি জীবনের ঘটনা পরম্পরাও প্রসঙ্গে এসে পড়তে বাধ্য১৯৪১ সালে গানগুলি প্রাথমিকভাবে তৈরি হওয়া এবং ১৯৪৯ সালে তার মধ্যে থেকে তিনটি মাত্র গান বেছে তথ্যচিত্রটি প্রকাশ পাওয়ার মধ্যে প্রায় এক দশকের ব্যবধানে গোটা বিশ্ব পরিস্থিতি খুব দ্রুত বদলে যায় উডির নিজস্ব রাজনৈতিক অবস্থানও সেই ধাক্কায় বদলাতে থাকে গানগুলিও যে সংযোজন বর্জনের মধ্য দিয়ে এই সামগ্রিক বদল প্রক্রিয়ার শরিক হয়ে উঠবে তাই তো স্বাভাবিকউডি কলম্বিয়া নদীবাঁধের গানগুলি লিখেছিলেন হিটলার রাশিয়া আক্রমণ করার আগেগানগুলি রেকর্ড করার সময় যখন এলো তিনি ততদিনে সম্পূর্ণভাবে নিজেকে সোভিয়েত ইউনিয়ন এবং সেই সঙ্গে গোটা পৃথিবীকে ফ্যাসিবাদের থাবা থেকে মুক্ত করার লড়াইয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছেনসেই মরণপণ অঙ্গীকার থেকেও তিনি অনেকক্ষেত্রে গানগুলিকে আবার নতুন করে লেখেন

১৯৩৯ থেকে ১৯৪৫ এর মধ্যে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পীড়িত পৃথিবীতে আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি ও সোভিয়েত দেশের অবস্থানের দ্রুত পটপরিবর্তন এবং সারা পৃথিবীর নানা দেশের কমিউনিস্ট আন্দোলনের উপর তার প্রভাব একই সঙ্গে যে উদ্দীপনা এবং বিভ্রান্তির সৃষ্টি করেছিল তাতে উডি গাথরীর রাজনৈতিক ও শৈল্পিক বোধও কি কোথাও নেড়ে ঘেটে যায় নি?

ব্রিটেন ও ফ্রান্সের সঙ্গে এক সম্মিলিত নিরাপত্তা চুক্তির সম্ভাবনা ব্যর্থ হওয়ার পর ঠিক কী কী জাতীয় রাজনৈতিক বাধ্যবাধকতায় স্তালিনের সোভিয়েত রাশিয়া হিটলারের নাৎসি জার্মানির সঙ্গে অনাগ্রসন চুক্তি (Molotov – Ribbentrop Pact) স্বাক্ষর করতে বাধ্য হয়েছিল, সোভিয়েত ইউনিয়নের অভ্যন্তরীণ সামরিক পরিকাঠামো ঢেলে সাজানোর জন্য প্রয়োজনীয় আরেকটু সময় পেতে এই চুক্তি স্তালিনকে কতটা সাহায্য করেছিল, জার্মানি এবং সোভিয়েত ইউনিয়নের একযোগে পোল্যান্ড আক্রমণই বা কতটা যুক্তিযুক্ত ছিল এসমস্ত বিতর্কিত বিষয়ে আলোচনা এ লেখার পরিসরের মধ্যে পড়ে নাকিন্তু এই সমস্ত ঘটনা পৃথিবীর আরো অনেক দেশের মতো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বৃহত্তর বাম আন্দোলন এবং উডি গাথরির মতো কম্যুনিস্ট রাজনীতির প্রতি দায়বদ্ধ শিল্পকর্মীকে কিভাবে প্রভাবিত করেছিল সে আলোচনা করতেই হয়। 

১৯৩৯ এ একদিকে হিটলারস্টালিন প্যাক্ট আর অন্যদিকে পোল্যান্ড সহ বাল্টিক দেশগুলির উপর সোভিয়েত আগ্রাসনের ভারে মার্কিন দেশের ফ্যাসিবিরোধী বাম ঐক্যমঞ্চ পপুলার ফ্রন্ট ভেঙে পড়েএই পপুলার ফ্রন্ট কিন্তু এ যাবৎ সেদেশের ফ্যাসিবাদবিরোধী বাম ও শ্রমিক আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এসেছেএমনকি ব্যক্তি উডির জীবনে যে অর্থনৈতিক বিপর্যয় তারও আশু কারণ কিন্তু সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রতি তাঁর রাজনৈতিক আনুগত্যলস এঞ্জেলেসে কে এফ ভি ডির বেতার অনুষ্ঠান থেকেও উডি এক নাগাড়ে সোভিয়েত ইউনিয়ন এবং সোভিয়েত জার্মান অনাক্রমণ চুক্তির পক্ষে জোরালো সওয়াল করতে থাকেনতিনি বিশ্বাস করতেন পৃথিবীর প্রথম সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্রকে রক্ষা করতে এই চুক্তির প্রয়োজন ছিল। তার এই অবস্থান কে এফ ভি ডির ম্যানেজার ফ্রাঙ্ক বার্কের অবস্থানের একেবারে বিপরীত হওয়ায় তার চাকরী যায়ফ্রাঙ্ক বার্ক সাধারণভাবে বামপন্থার প্রতি সহানুভূতিশীল হলেও স্তালিন এবং স্তালিন হিটলার চুক্তির সম্পূর্ণ বিরোধী ছিলেনএ প্রসঙ্গে একটা কথা বলা প্রয়োজন, উডি গাথরী আমেরিকার কমিউনিস্ট পার্টির আনুষ্ঠানিক সদস্যপদ নিয়েছিলেন কিনা সে কথা আজও নিশ্চিতভাবে বলা যায় নাতিনি নিজেও এ বিষয়ে স্পষ্ট করে কখনো কিছু বলেননিবরং উডি নিজেকে চিরকাল কমিউনিস্ট পার্টির একজন সহযাত্রী হিসেবেই ভেবেছেন। তা সত্ত্বেও, মার্কিন কংগ্রেসের ডাইস কমিটি তাকে কমিউনিস্ট সাব্যস্ত করে এবং এফবিআই তার নামে নজরদারি ফাইলও খোলে 10১৯৪১ এর জুন মাসে বনভিল পাওয়ার এডমিনিস্ট্রেশনের সঙ্গে তার চুক্তির মেয়াদ ফুরোলে তিনি আবার নিউ ইয়র্কে ফিরে আসেনএই জুন মাসেই জার্মান সোভিয়েত অনাক্রমণ চুক্তি নাকচ করে কোনরকম আগাম সতর্কবাণী ছাড়াই একটি জার্মান ডুবোজাহাজ সোভিয়েত ইউনিয়নের রুবেন জেমস জাহাজটিকে আক্রমণ করে ডুবিয়ে দেয়। যে উডি গাথ্রী এতদিন পর্যন্ত তার “Woody Sez” কলামে ঘোষিতভাবে শান্তিবাদী অবস্থান নিয়ে এসেছেন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে প্রথম থেকে মার্কিনী নির্লিপ্ততা ও অপক্ষপাত নীতির সামান্যতম বিচ্যুতির সম্ভাবনাতেও প্রতিবাদ জানিয়েছেন, যিনি যুদ্ধকে তত্ত্বগতভাবেই বিকারগ্রস্ত মনের ঠান্ডা মাথায় করা খুনের পরিকল্পনা হিসেবেই দেখেছেন, যিনি এই মাত্র ক’দিন আগেই তার দেশের যুদ্ধবাজ রাষ্ট্রনায়কদের এমন কথাও বলেছেন যে “if you happen to have the notion in your head that there ain’t no work to be done except to spend all your money on bombs – I suggest that you take a look at Skid Row and invest money in making man out of bums.”11সেই তিনিই কিন্তু সোভিয়েত দেশের ওপর এই জার্মান আক্রমণ ঘটা মাত্র ফ্যাসিবিরোধী যুদ্ধে প্রত্যেক মার্কিন জনগণের সর্বশক্তি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ার পক্ষে দাড়ালেন। আলমানাক সিঙ্গারস এর জন্য যুদ্ধের সমর্থনে প্রথম গান বাঁধলেন – “The sinking of the Reuben James”। সে বছরই একেবারে শেষের দিকে ডিসেম্বর মাসে পার্ল হারবারের ওপর জাপানি আক্রমণ যেন তার এই অবস্থান বদলের পক্ষে আরো অকাট্য, অব্যর্থ যুক্তি হাজির করল। তিনিও তার সমস্ত ক্ষমতা নিয়ে ন্যায় যুদ্ধের পক্ষে গান বাঁধতে নেমে পড়লেন। 

স্টালিন অনুগত হ্যারি পলিটের নেতৃত্বাধীন গ্রেট ব্রিটেনের কম্যুনিস্ট পার্টির লাইন মেনে পি. সি. যোশীর প্রাথমিক বিরোধিতা সত্ত্বেও 12 ভারতের কম্যুনিস্ট পার্টি যেমন রাতারাতি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকে সাম্রাজ্যবাদী যুদ্ধ থেকে জনযুদ্ধের স্তরে নিয়ে চলে যায় এবং সেই যুদ্ধে মিত্র শক্তির হাত শক্ত করতে দেশের মধ্যে ঔপনিবেশিক সরকার ও শ্রমিক শোষণের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ কর্মসূচি আপাতত স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেয়, আমেরিকাতেও ঠিক একইভাবে আমেরিকার কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব সোভিয়েত দেশ আক্রমণকারী হিটলারের নাৎসি জার্মানি কে হারানোর আগে পর্যন্ত মার্কিন শ্রমিক-কৃষক জনগণের সংগ্রামকে পেছনে ঠেলে অক্ষ শক্তির বিরুদ্ধে মার্কিন সরকার ও জনগণের ঐকান্তিক এবং প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে উদ্যোগী হয়। প্রাথমিকভাবে ১৯৪১ সালে লেখা হলেও উডির কুলি বাঁধের গানগুলি কিন্তু এই বৃহত্তর রাজনৈতিক পরিমণ্ডলেই তাদের চূড়ান্ত রূপ পেয়েছিল এবং মার্কিন সরকারের কাছে তো বটেই উডির মত এক সৎ বাম রাজনৈতিক কর্মীর কাছেও শান্তির সময় যে বাঁধের কাজ মূলত জনকল্যাণের উদ্দেশ্যে শুরু হয়েছিল তা যুদ্ধের সময় মার্কিন দেশের ক্ষমতার প্রতীক হয়ে ওঠে। জলবিদ্যুৎ আর সেচের জল শুধু সম্মৃদ্ধির করণমাত্র নয়, এই দানবীয় ক্ষমতা বলেই আমেরিকা তার উড়োজাহাজ আর যুদ্ধজাহাজ নিয়ে অক্ষ শক্তিকে ধ্বংস করবে – 

There was a man across the ocean, I guess you knew him well,
His name was Adolf Hitler, goddam his soul to hell;
We kicked him in the panzers and put him on the run,
And that was about the biggest thing that man has ever done.

… … … …

There’s warehouse guys and teamsters and guys that skin the cats
Guys that run my steel mill, my furnace and my blast
We’ll stop the Axis rattlesnakes and thieves of old Nippon
And that will be the biggest thing that man has ever done.

গ্রেট বৃটেনের কমিউনিস্ট পার্টির প্রস্তাবিত লাইন মেনে পশ্চিম ইউরোপীয় এক নাৎসি বিরোধী দ্বিতীয় ফ্রন্ট খোলা প্রয়োজন, কারণ পূর্ব ইউরোপে সোভিয়েত ইতিমধ্যেই নাৎসিদের বিরুদ্ধে লড়াই করছে, এবং সেই লড়াইয়ে তাদের সাহায্য করতে হবে তাই আলমানাক সিংগার্স ও “Songs for John Doe” এর মত আগের যুদ্ধবিরোধী গানের অ্যালবামের একেবারে বিপ্রতীপ অবস্থানে গিয়ে নতুন সব যুদ্ধের গান বাঁধতে শুরু করে এখানে একটা কথাও মনে রাখা প্রয়োজন, সোভিয়েত আনুগত্যের জায়গা থেকে রাতারাতি অবস্থান বদলালেও সেই পরিবর্তিত অবস্থানে সততার অভাব কিন্তু ছিল না কারণ অ্যালমানাক সিঙ্গারস এর প্রধান গীতিকার হিসেবে উডি শুধু যুদ্ধযাত্রার গান লিখে, সে গান গেয়েই থেমে থাকেননি, তিনি নিজেও ১৯৪৩এ সশরীরে যুদ্ধে যোগ দেন। তার আগে তিনি ১৯৪১এই আলমানাক সিঙ্গারস এর তরফে দুটি গানের অ্যালবাম – “Deep Sea Shanties” “Sod Buster Ballads” রেকর্ড করেন এবং কংগ্রেস অব ইন্ডাস্ট্রিয়াল অরগানাইজেশনস এর হয়ে আমেরিকার পূর্ব থেকে পশ্চিম উপকূল পর্যন্ত নানা জায়গায় ঘুরে ঘুরে গানের অনুষ্ঠান করতে থাকেননিউ ইয়র্কের গ্রিনিচ গ্রামে উডি গাথরী ও আলমানাক সিঙ্গারস এর বাকিরা  মিলে তাদের প্রথম আলমানাক হাউজ তৈরি করেন। এরই মাঝে উডি তার আত্মজীবনী “Bound for Glory” – র কাজও শুরু করেন। “This Machine Kills Fascists” উডির গিটারের ওপর এই বিশ্ব বিখ্যাত উবাচটিও এই সময়তেই ১৯৪২ এ প্রথম আত্মপ্রকাশ করে

গানের লিংক

 

শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published.